মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

মুক্তিযোদ্ধে বিলাইছড়ি

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় রাঙ্গামাটির বিলাইছড়ি উপজেলা ছিল উত্তাল এক আতংকের জনপদ।  এখানে তৎকালীন পশ্চিম পাকিসত্মানের নাগরিক তথা পাঞ্জাবীরা কাঠ, বাশ ও পাথনসহ বিভিন্ন ব্যবসা করত। ফারুয়া, শুক্কুরছড়ি, ধুপশীল, ছাক্রাছড়ি, বিলাইছড়ি ও দীঘলছড়ি ডেবারমাথা প্রকৃতি স্থানে পাঞ্জাবী ব্যবসায়ীরা অবাধে ব্যবসা করতে থাকে। সকল পাঞ্জাবী ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি বাঙ্গালী ব্যবসায়ী ও বাঙ্গালী জনগণ ব্যবসার কাজে নিয়োজিত থাকায় তখন বিলাইছড়ি ব্যবসা বানিজ্যে সরব ছিল। সেই সময় কাপ্তাই থেকে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী বিলাইছড়িতে টহলে এসে আবার কাপ্তাই ফিরে যেত। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তখন পাকিস্তানের দৃসর  রাজাকার লেদু, আব্বাস, ইউনুসসহ পশ্চিম পাকিস্তানের অপর এক পাঞ্জাবী কর্তৃক বিলাইছড়ি সদরে ব্যাপক লুটপাট হয়। বর্তমান বিলাইছড়ি মডেল হাই স্কুল প্রাঙ্গণে সেই সময়ে ছিল বিশিষ্ট বাঙ্গালী ব্যবসায়ী আহমদ আলী সওদাগরের বাসা। যুদ্ধের সময় ওই বাসাসহ বিলাইছড়ির বিভিন্ন স্থানে লুট করে অনেক মূল্যবান সরঞ্জামাদি হাতিয়ে নিয়েছিল উল্লেখিত রাজাকার ও তাদের সহযোগিরা। এমনকি আহমদ আলী সওদাগরের নিজস্ব ব্যবহৃত দ্রুত গতির ০২টি স্পীডবোট পাক সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দিয়েছিল ওই রাজাকাররা । তখন উক্ত ব্যবসায়ী পাক বাহিনীর ভয়ে বিলাইছড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হয়। ১৯৭১ সালের এপ্রিলের শেষের দিকে মুক্তিবাহিনী বিলাইছড়ি সদরে এলে তখন লুটপাটে জড়িত থাকা পাক বাহিনীর  দোসর উল্লেখিত ৪ রাজাকারকে মুক্তিবাহিনী হত্যা করে। এরপর হাসপাতাল এলাকায় গর্তকরে মৃত দেহগুলো কবর দেয়া হয়েছিল। পাকিস্তানের দোসর ওই রাজাকারদের হত্যার পর বিলাইছড়ি সদরে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী একটি ক্যাম্প স্থাপন করে। সেই সময় স্থানীয় উপ-জাতীয়দের অনেকে রাজাকার বাহিনীতে যোগ দিতে বাধ্য করা হয়। এমনকি তারা পাকবাহিনীর সাথে সমতল এলাকায় গিয়েও রনাঙ্গনে জড়িয়ে পড়ে। তখন অনেক রাজাকারের মৃত্যু হয় । ৭১ সালে পাক বাহিনীর সহায়তায় কাইয়ুম খান নামক জনৈক পাঞ্জাবী দীঘলছড়ি ডেবারমাথা থেকে ২ সুন্দরী উপজাতীয় যুবতীকে বিলাইছড়ি সদরে এনে ২ সপ্তাহ আটকে রাখার ঘটনাও ঘটেছিল। ফারুয়া, শুক্করছড়ি, ধুপশীলসহ বিভিন্ন এলাকায় কেপিএম এর কাঁচামাল সরবরাহের কাজে পাঞ্জাবী ব্যবসায়ীসহ বাঙ্গালীরা কর্মব্যস্ত থাকত। একাত্তরে দেশজুরে যুদ্ধের উত্তাপ ছড়িয়ে দুর্গম ফারুয়া, ধুপশীল ও প্রত্যন্ত বিলাইছড়ির বিভিন্ন ছড়া ও পাহাড়ে অনেক পাঞ্জাবীকে কুপিয়ে হত্যা করেছিল বাঙ্গালী শ্রমিকরা। যুদ্ধের সময় মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনী পায়ে হেঁটে ফারুয়া সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে যাতায়াত করত। মুক্তিযুদ্ধ কালীণ সময়ে ফারুয়া ও শুক্কুরছড়ির মোহনায় পাক সামরিক ঘাঁটি ছিল। ওই ঘাঁটিতে পাঞ্জাবী, রাজাকার আলবদরসহ ২৫০ জন সৈন্য অবস্থান করত। সেই সময়ে পাক বাহিনীর যাতায়াত সুবিধার জন্য কয়েকটি লঞ্চ ও গানবোট সেখানে অবস্থান করত । আগষ্টের মাঝামাঝি সময়ে পাইলট মান্নানসহ মুক্তি বাহিনীর একটি দল পাহাড়ি এলাকার পথ হারিয়ে রাতের অন্ধকারে ফারুয়ায় পাকবাহিনীর ক্যাম্পের অভ্যন্তরে এসে পড়ে। তারা চাকমাদের সহায়তায় নৌকায় করে শুক্কুরছড়ি এলাকায় নিরাপদ স্থানে পৌঁছে যায়। জানা যায় ফারুয়ায় কয়েকশত মুক্তিযোদ্ধা পাকবাহিনীর হাতে ধরা পড়ে নৃশংসভাবে শাহাদাৎ বরণ করে। ফারুয়ার জালিয়া পাড়া নামক স্থানে সুলতান আহম্মদ কুসুমপুরীর নেতৃত্বাধীন মুক্তি বাহিনী পাকবাহিনীর দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে  বলে জানা যায়। পাকবাহিনীর সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধে সুবেদার টি এম আলী এখানেই শহীদ হন। এই যুদ্ধে সুবেদার আবু ইসলাম দোহাজারী এবং সুলতান আহম্মদ কুসুমপুরী আহত হন। পরবর্তীতে মিত্র ও মুক্তি বাহিনী ফারুয়ায় পাকবাহিনীর ক্যাম্পে আক্রমন চালিয়ে বিনা রক্তপাতে ফারুয়া দখল করে নেয় । সেখানে অবস্থানরত রাজাকার, আলবদররা সাদা পতাকা উত্তোলন করে মিত্র ও মুক্তিবাহিনীর নিকট আত্বসমর্পন করেছিল।

 

তথ্যসূত্রঃ

বিলাইছড়ি প্রবীন ব্যক্তিদের নিকট থেকে পাওয়া তথ্য ও রাঙ্গামাটি জেলা তথ্য বাতায়নের মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধা।

ছবি